ক্লান্ত দুপুরে দোকানদার যখন দোকানে বসে জিরোচচ্ছেন ঠিক সেইসময় অদ্ভুত এক দড়ির মতো বস্তু উপর থেকে পড়ে কিলবিল করতে করতে তার সামনে দিয়ে বেরিয়ে গেল।…….. এ মা! ….. এতো সাপ…., শোনামাত্রই মালিক-কর্মচারী শুদ্ধ দিল দৌড়………
না এ কোনো গল্পের লাইন নয়…. এমনি ঘটনা আজ ঘটল রায়গঞ্জ স্টেশন এর নিকটবর্তী জনতা ক্লথ স্টোর-এ।
ভীত-সন্ত্রস্ত দোকান মালিক ফোন করলেন আমাদের, ছুটে গিয়ে দেখা গেল মোটামুটি বড় মাপের একটি বেতআচরা সাপ। সময় বিলম্ব না করেই উদ্ধার করা হলো সাপটিকে।

উদ্ধার স্থলে অবস্থিত অনেক লোকজনের মুখে শোনা গেল সেই সাপটি নাকি খুবই বিষধর—– “বাবারে কি ভয়ানক”, “এরপর সেই বিষ”, “এই সাপ কারোর গায়ের উপর দিয়ে হেঁটে গেলে সেই জায়গা ফুলে যায়”……. এরকম অনেক কথাই অনেক লোকজনের মুখে শুনতে পাওয়া গেল আজ। শুধু তাই নয় মাঝে মাঝে বেশ কিছু জায়গায় শিক্ষিত লোকজনের মুখে ও এধরনের কথা আমরা প্রায়ই শুনে থাকি।

বিঃ দ্রঃ- দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে আমাদের সংস্থা এটা পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিতে চায় যে এই সাপটির বিন্দুমাত্র বিষ নেই, সম্পূর্ণভাবে নির্বিষ এই সাপটির নাম বেতআচরা সাপ যা আমাদের রায়গঞ্জ এমনকি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে এর অধিপত্য লক্ষ্য করা যায়। অতি চিকন দেখতে লাজুক স্বভাবের এই সাপটি কে অনেকে লাউডগা সাপ বলে ভুল করে থাকে কিন্তু আমরা এটাও পরিষ্কারভাবে বলতে চাই যে লাউডগা সাপ ও বেতআচরা সাপ দুটো আলাদা।
বিশদ বিবরণের জন্য আপনারা গুগলের উইকিপিডিয়া পেজ ব্যবহার করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *