উদ্ধার হল Black winged kite ( Scientific name – Elanus Caeruleus ) – হেমতাবাদের নরহট্টা গ্রাম থেকে। ভারী সুন্দর দেখতে এই পাখিটিকে অসুস্থ অবস্থায়   পড়ে থাকতে দেখতে পায় ঐ গ্রামেরই মংরু বলে একজন। কিন্তু ঐ গ্রামেরই সচেতন বাসিন্দা নব বর্মন তাকে নিষেধ করে বলে যে বন্য পশু পাখি আইনত পোষা বা রাখা যায় না। নব বর্মন উত্তর দিনাজপুর পিপল ফর এনিম্যালস এর অফিসে খবর দিলে সংস্থার সদস্যরা পাখিটি  উদ্ধার করে নিয়ে আসার পর পাখিটির প্রাথমিক চিকিৎসা শুরু করে।

 রায়গঞ্জের বিশিস্ট পাক্ষিবিদ অরূপ মিত্র পাখিটির সনাক্ত করেন এবং বলেন যে এই পাখি দক্ষ শিকারি। অন্য আর এক পাক্ষিবিদ অভিজিৎ সরকার এর মতে এই পাখিটি ভারতে দেখা গেলেও সাধারনত পরিযায়ী পাখির পর্যায়েই পড়ে। সমতল এলাকা ছাড়াও পাহারি এলাকাতেও এই পাখি তিন হাজার মিটার উচ্চতাতেও দেখা যায়।গৌতম তান্তিয়ার মতে ইঁদুরের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে এই পাখি গুরুত্তপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। একটি পূর্ণ বয়স্ক Black shouldered kite বছরে প্রায় এক হাজারের মতো ইঁদুর খেয়ে নেয়। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষর্থে এই পাখির অবদান অপরিসীম। ইঁদুর খেয়ে মানুষের অনেক উপকার করে এই পাখি। এইরকম একটি পাখিকে বাঁচানোর জন্য নবকুমার বর্মন কে সংস্থার তরফ থেকে অশেষ ধন্যবাদ জানানো হয়। চিকিৎসার পর পাখিটি এখন সুস্থ আছে। ছাড়া হবে আজই আব্দুল ঘাটা ফরেস্ট এলাকায়। এইরকম পাখির সংখ্যা দিন দিন কমছে। তার কারণ পরিবেশ দূষণ। তাছাড়াও আদিবাসি রা এগুলো শিকার করে খাওয়ার জন্য।

THIS NEWS IN ENGLISH

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *