সকলকে শুভ নববর্ষের ভালোবাসা জানিয়ে আজ আমি একটা অনুরোধ করতে চাই সকল শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষকে। সেটা হলো, গ্রীষ্মের চরম দাবদাহে সব নদী নালা খাল বিল শুকিয়ে যায়। এই সময় সমস্ত জীবকূলকে এক বিরাট সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়, তা হলো তৃষ্ণা নিবারণের জন্য প্রয়োজনীয় পর্যাপ্ত পানীয় জল। হ্যাঁ জল, যার অপর নাম জীবন। কিন্তু মানুষ যেহেতু সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাণী, তাই পিপাসা পেলে ঠিক পানীয় জলের ব্যবস্থা নিজে নিজে করে নিতে পারবে। কিন্তু কোনো পশু পাখির পক্ষে তো তা সম্ভব না। তাই আমরা যখন মানুষ বলে সমাজে পরিচিত, তখন আমাদের সমাজের প্রতি একটি দায়বদ্ধতা থেকেই থাকে। সেই দায়বদ্ধতা থেকেই বলছি, আমরা যদি ছাদে,বা উঠোনের এক প্রান্তে একটি মাটির ভারে জল রেখে দি, তাহলে অনেক পাখি সেই জল খেতে আসবে, ও শুধু পাখি কেন? আমরা যদি রাস্তায় এক পাশে কোনো ভাবে মাটির ভারে জল রেখে দিই তাহলে পথচলতি অনেক কুকুর বেড়ালরাও নিজেদের তৃষ্ণা নিবারণ করতে পারবে। চলুন না দেখি, সকলের প্রচেষ্টায় যদি এটাকে বাস্তবায়িত করা যায়! কিন্তু মাথায় রাখতে হবে, সেই জল কিন্তু নিয়ম মতো দায়িত্ব নিয়ে বদলাতে হবে। জানি আমাদের কাছে এসবের জন্য সময় নেই কিন্তু তাও আমরা এই বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করে একটা পদক্ষেপ নিতেই তো পারি। পাড়ার ৮/১০ টা বাড়ি যদি এরকম করা শুরু করে তাহলেই পশু পাখি গুলোর অনেক টা জলের চাহিদা মিটবে। এই মহৎ কাজে আমরা নিজেদেরকে লিপ্ত করে, পরিবেশের এত উপকারের বিনিময়ে, এই ছোট্ট একটা উপহার তো বিনিময়ে দিতেই পারি। তাই নয় কী???

 

লেখায় : Atalanta Chowdhury

One thought on “আপনার ছাদে নিয়মিত জল রাখুন এবং পাখিদের বাঁচান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *